ফ্রীল্যান্সিং এর কাজ শুরুর ৩১ দিনের এই ধাপের আজ হলো তৃতীয় দিন

ফ্রীল্যান্সিং এর কাজ শুরুর ৩১ দিনের এই ধাপের আজ হলো পঞ্চম দিন

July 5, 2017 0

আপনার কাহিনী বলুন ফ্রীল্যান্সিং কাজ শুরুর ৩১দিনের এই ধাপে আজ হলো পঞ্চম দিন ( অথবা নিজেকে আরো ভালো ভাবে তৈরি করার দিন)। ১ম দিন সম্পর্কে বিস্তারিত>>

ফ্রীল্যান্সিং এর কাজ শুরুর ৩১ দিনের এই ধাপের আজ হলো তৃতীয় দিন(ধরে  নিন,নিজেকে আরো ভালো ভাবে তৈরী করার একটি দিন)। যদি আপনি পূর্বের দিন গুলো বাদ দিয়ে থাকেন, তাহলে নিচের বিষয় গুলো আগে পড়ে

নিতে পারেন :

প্রথম দিন:  আপনার ফ্রীল্যান্সিং করার মতো যেসব  দক্ষতা আছে,  সেগুলোর একটি তালিকা তৈরী করুন।

দ্বিতীয় দিন: আপনার ফ্রীল্যান্সিং করার মতো যেসব উপকরণ রয়েছে,  সেগুলো যাচাই করে নিন।

গতকাল আপনি আপনার ফ্রীল্যান্সিং এর জন্য প্রয়োজনীয় সকল উপাদানের একটি পুঙ্খানুপুঙ্খ তালিকা তৈরী করেছিলেন।  ভবিষ্যৎ এর করণীয় সম্পর্কে নির্ধারণ করার জন্য আজকে আমরা একটু বিবেচনা করে দেখবো:

আমরা লক্ষ্য নির্ধারণ করছি ।

কিভাবে লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হয়:

ইউনাইটেড নেশনস এ ১৪ বছর কাজের পর যদি আমি কিছু শিখে থাকি তা  হলো: আপনাকে একটি স্মার্ট (SMART) লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে।  স্মার্ট (SMART) লক্ষ্য টি কি?

Specific – সুনির্দিষ্টতা

Measurable – পরিমাণসাধ্য

Attainable – আয়ত্তসাধ্য

Realistic – বাস্তবানুগ

Time-bound – সময় এর আওতাধীন

এইবার আমরা প্রতি টি বিষয় একে একে দেখে নিই :

সুনির্দিষ্টতা: আপনার লক্ষ্য এতটাই সুনির্দিষ্ট হতে হবে যেন আপনি একে দেখতে পারেন, ছুঁতে পারেন, অনুভব করতে পারেন এবং সত্যিকার অর্থে যখন এটি ঘটবে তখন এর আস্বাদ  গ্রহণ করতে পারেন।  উদাহরণ স্বরূপ: আপনি চাকরি জীবনের সুখ ও পরিপূর্ণতা লাভ কে লক্ষ্য স্থির করতে পারেন না, নিজেকে প্রশ্ন  করুন: সুখ ও পরিপূর্ণতা  দেখতে কেমন দেখায়? এটি কি প্রতিদিন সকালে বিছানা থেকে উত্তেজিত ভাবে লাফ দিয়ে উঠে নিজের কাজে ঝাঁপিয়ে পড়ার মতো? জীবনের সুখ ও পরিপূর্ণতা লাভ কে সুনির্দিষ্ট করা যায় না।  কিন্তু বিছানা থেকে উত্তেজিত ভাবে লাফ দিয়ে উঠাকে আপনি সুনির্দিষ্ট করতে পারেন।  আপনি কি পার্থক্য তা বুঝতে পারছেন?

পরিমাণসাধ্য : আপনার লক্ষ্য পরিমাপ যোগ্য বা গণনাক্ষম হওয়া উচিত।  সুতরাং আমাদের উপরের উদাহরণের মতো আপনি এখানে বলতে পারেন “প্রতি সপ্তাহে কমপক্ষে ৫ বার সকাল বেলা বিছানা থেকে উত্তেজিত ভাবে লাফ দিয়ে উঠা” – যার পরিমাপযোগ্যতা আছে।  যখন আপনার লক্ষ্য পরিমাপযোগ্য হবে, তখন এটি খুব সহজেই বের করা যায় যে আপনাকে আর কতটুকু পথ যেতে হবে।  যেমন ধরুন  আপনি যদি ইতিমধ্যে সপ্তাহে ২ দিন সকাল বেলা আপনার বিছানা থেকে লাফ দিয়ে উঠে পড়েন, তাহলে আপনি সহজেই এটি বুজতে পারেন যে, আপনাকে শুধু আর ৩ বার এই কাজটি করার মতো উৎসাহের প্রয়োজন।

(দুঃখিত, আমার উদাহরণটি খুব হাস্যকর , কিন্তু  “স্মার্ট” ফ্রেমওয়ার্ক” বুঝতে এই ধারণাটি প্রয়োগ করা হলো । এখন পর্যন্ত তাহলে ঠিক আছে ?)

আয়ত্তসাধ্য: প্রত্যেক ব্যক্তিগত উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ আপনাকে বড় স্বপ্ন দেখতে  বলবেন । কিন্তু বাস্তব লক্ষ্য নির্ধারক গণ আপনাকে আপনার নাগালের মধ্যে বড় স্বপ্ন দেখতে বলবে।  আপনার লক্ষ্য এতটাই প্রসারিত হওয়া উচিত যেন তা আপনাকে আপনার আরাম আয়েশের জীবনের বাইরে টেনে নিয়ে আসে, কিন্তু এতদূরও নয় যে তা আপনাকে শুধু ব্যর্থতার জন্যই  তৈরী করে।  তাই বড় স্বপ্ন দেখুন কিন্তু তা যেন অবশ্যই  বাস্তব সম্মত হয়।

বাস্তবানুগ: আপনার প্রয়োজনীয় উপকরণ সমূহের তালিকাটির কথা কি মনে আছে? আপনার এইসব প্রয়োজনীয় উপকরণের মাধ্যমেই  যেন আপনার লক্ষ্য অর্জন করতে পারেন, তা নির্ধারণ করুন।  উদাহরণ স্বরূপ, আপনি যদি সপ্তাহে শুধু এক ঘন্টা ফ্রিল্যান্সিং করে থাকেন, তবে বাস্তব সম্মত ভাবে, আপনি কিন্তু একটি ছয় অংক  বিশিষ্ট সংখ্যার ইনকাম কে লক্ষ্য হিসাবে স্থির  করতে পারেন না। আদৌ কি এটি সম্ভব? হতেও পারে।  আপনি হয়তো এমন কেউকে পেতেও পারেন, যে এটি করেছে।  কিন্তু এটি আপনার বা অন্য কারো জন্য খুব অসম্ভব ধরণের একটি কাজ  হবে।

সময় এর আওতাধীন: আপনার লক্ষ্য যা নির্ধারণ করবেন, তার মধ্যে সময় জ্ঞান থাকা উচিত। এটির একটি পৌনঃপুনিকতা থাকতে হবে ; যেমন – প্রতি মাসে ২০০০ ডলার ইনকাম করতে হবে।  বা নির্দিষ্ট কোনো সময়সীমা  বেঁধে দিতে হবে – ২০০৯ এর ডিসেম্বর এর শেষের দিকের মধ্যে।  এই সময়ের বাধ্যবাধকতা আপনাকে আপনার অগ্রগতি পরিমাপ এবং পর্যবেক্ষণ করার জন্য একটি পথ খুলে দিবে।  এটি আপনাকে আপনার লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য একটি সর্বশেষ সময়সীমা ও বেঁধে দেয়।  এরপর যখন আপনি আপনার লক্ষ্য অর্জন করেন, তখন আপনি আরো বড় লক্ষ্যের পথে ছুটতে পারবেন।

আপনি কি লক্ষ্য নির্ধারণ করা উচিত?

এখন আপনি কি জানেন যে কিভাবে স্মার্ট ফ্রিল্যান্সিং লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হয়  , আপনার কি ধরনের লক্ষ্য  থাকা উচিত? একটি লক্ষ্য নিয়ে কাজ করার চেষ্টাকরুন:

  • আপনারফ্রিল্যান্সিংআয়
  • আপনারফ্রিল্যান্সিংজীবনধারা

অধিকাংশ ফ্রিল্যান্সার গণ তাদের আয়ের একটি লক্ষ্য মাত্রা নির্দিষ্ট করেন।   লক্ষ্য নির্ধারণ করা ভালো, কিন্তু আপনাকে আরো সামনে  এগিয়ে যেতে হৰে।  আপনার জীবন ধারার সাথে সঙ্গতি বজায় রেখে লক্ষ্য নির্ধারণ করুন।  সব মিলিয়ে আমরা আপনাকে ধনী  এবং সুখী দুটোই দেখতে চাই। যদি এক মাসে ১০০০০ ডলার আয়  এর জন্য আপনাকে আপনার পরিবার থেকে দূরে সরে যেতে হয়, আপনার সাপ্তাহিক খোলা আর বন্ধের  দিনের কোনো পার্থক্য না থাকে এবং  এর পর আপনি চর্চা করা একেবারেই ছেড়ে দিলেন, তাহলে এটি কিন্তু আপনার জন্য ভালো হবে না।

(দ্রষ্টব্য: আমি আমার ক্লায়েন্ট নিকল ডিনকে এই জীবন যাত্রার লক্ষ্যের নির্ধারণের বিষয়ে পরামর্শ প্রদানের জন্য  ধন্যবাদ  দিতেচাই।)

যদি আপনি আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার কে আপনার বাকি জীবন যাত্রার সাথে মিলিয়ে নিয়ে চলতে না পারেন, তবে এটি কিন্তু যথোপযুক্ত নয়।

আমাদের এখানে অবশ্যই যথোপযুক্ততার দিকে খেয়াল রাখতে হবে ।

আপনার ফ্রিল্যান্সিং এর লক্ষ্য কি? আপনি যদি এটির উপর কাজ করে থাকেন, তাহলে নিচের কমেন্টস ঘরে আমাদের সাথে শেয়ার করুন।অথবা এই ধাপটি আপনার কেমন লেগেছে, তা আমাদের সাথে শেয়ার করুন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


Enjoy this blog? Please spread the word :)