ফ্রীল্যান্সিং এর কাজ শুরুর ৩১ দিনের এই ধাপের আজ হলো পঞ্চম দিন

ফ্রীল্যান্সিং এর কাজ শুরুর ৩১ দিনের এই ধাপের আজ হলো পঞ্চম দিন

July 5, 2017 0

আপনার কাহিনী বলুন ফ্রীল্যান্সিং কাজ শুরুর ৩১দিনের এই ধাপে আজ হলো পঞ্চম দিন ( অথবা নিজেকে আরো ভালো ভাবে তৈরি করার দিন)। ১ম দিন সম্পর্কে বিস্তারিত>>

আপনার কাহিনী বলুন

ফ্রীল্যান্সিং কাজ শুরুর ৩১দিনের এই ধাপে আজ হলো পঞ্চম দিন ( অথবা নিজেকে আরো ভালো ভাবে তৈরি করার দিন)। ১ম দিন সম্পর্কে পড়তে চাইলে এখানে ক্লিক করুন।

Practical freelance training

আমাকে মানতেই হবে যে, গত দিনের কাজ একটু কঠিন ছিল। তাই আজকে আমরা একটু হালকা বিষয় নিয়ে আলাপ করবো। এটি অনেক মজাদার হবে এবং আমি এই বিষয়ে আপনাদের মতামত জানতে খুবই আগ্রহী।

আপনার কাহিনী কেন বলবেন?

বিভিন্ন কাহিনী গুলো যা আমরা শুনে থাকি, এগুলোর কিন্তু একটা শক্তি আছে। আমরা ছোটবেলা থেকেই নানা রকম কাহিনী শুনতে অভ্যস্থ হয়ে উঠি। যখন কেউ আমাদের কোনো কাহিনী শোনান, তখন যেন আমরা সম্মোহিত হয়ে যাই এবং ঐ কাহিনী শোনার একটা মানসিক অবস্থা তৈরি হয়।

আমি যখন টিভিতে ছোট দের অনুষ্ঠান পরিচালনা করতাম, তখন প্রায়ই গুরুত্বপূর্ন ধারণা গুলো তাদের মনে গড়ে তুলতে আমরা বিভিন্ন গল্প/ কাহিনীর সাহায্য নিতাম, যেখানে বাচ্চারা বুঝতেই পারতোনা যে তাদের কিছু শেখানো হচ্ছে।

পারস্পরিক বন্ধনের জন্য এই ধরণের কাহিনি গুলো খুব গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যখন আপনার প্রেমিক/প্রেমিকাকে নিয়ে ঘুরতে যান, তখন কি করেন? অপনারা একে অপরকে বিভিন্ন গল্প শোনান।

একই বিষয় আপনার মক্কেলদের কেও আকৃষ্ট করে। আপনি চান আপনার সম্ভাব্য মক্কেল আপনাকে জানুক, এর ফলে তারা আপনাকে ভালোবাসতে শিখবে এবং আপনাকে তাদের কাজ দেয়ার মতো বিশ্বাসযোগ্য মনে করবে।

 

আপনার কাহিনী কি?

 

আজকে আপনি নিজের কাহিনী লিখবেন। আপনি ভাবছেন, লেখার মতো কোনো কাহিনী নেই,? এই প্রশ্ন গুলোর উত্তর দেয়ার মাধ্যমে শুরু করুন:

* ফ্রীল্যান্সিং শুরু করার পূর্বে আপনি কি করতেন? (অথবা ফ্রীলানসিং শুরু করার পর এখন আপনি একই সাথে আপনি আর কি করছেন?

* ফ্রীল্যান্সিং এর ব্যাপারে আপনি কি ভাবছেন? কোন বিষয়রি আপনাকে অনুপ্রেরনা দেয়?

* কি ভাবে আপনি ফ্রীল্যান্সিং এর কাজ শুরু করলেন?

* আপনার বর্তমান কাজটি আপনি কত ভালো ভাবে করতে পারেন?

* আপনার লক্ষ্য কি? কোন ব্যাপারটি আপনাকে এত পরিশ্রম করার উৎসাহ যোগায়?

* সাফল্যকে আপনি কিভাবে মূল্যায়ন করেন?

যখন আপনি আপনার কাহিনী লিখা শুরু করবেন, তখন কোনো রকম সংশোধন না করে লিখে যাবেন। এটি যদি অনেক বড় হয়ে যায়, অথবা আপনি যদি এটিকে অনেক বিস্তৃত করে লিখেন বা নিজের বিষয়ে অনেক বেশি কিছু প্রকাশ করে ফেলেন, তাহলে এটি নিয়ে ভাবনার কিছু নেই। পূর্বের কাজটির মতো, যতক্ষন পর্যন্ত আপনার এই কাজের সাথে সম্পৃক্ত সব ভাবনা গুলো লিখা না হয়, ততক্ষন পর্যন্ত লিখতে থাকুন। আপনি পরবর্তীতে সব কিছু সংশোধন ও পরিমার্জন করতে পারবেন।

আপনি যদি একজন লেখক না হয়ে থাকেন এবং লেখা যদি আপনার জন্য কঠিন হয়, তাহলে আপনি আপনার কাহিনীগুলো মুখে বলে এই ফ্রী সফটওয়ার টির মাধ্যমে রেকর্ড করতে পারেন।

আপনি যদি চান, তাহলে কিছু সময় এর জন্য বিরতি নিতে পারেন ,( অথবা কোন ফ্রীল্যান্সিং এর কাজ করতে পারেন এই বিরতিতে) এবং পরবর্তীতে যখন আপনি নিজেকে সতেজ বোধ করবেন, তখন আবার আপনার কাহিনীতে ফিরে আসবেন।

এখন পূনরায় আপনার কাহিনীটি পড়ুন। মূল কোন বিষয়টি আপনাকে ফুটিয়ে তুলবে, তা খুঁজে বের করুন। কোন বিস্তারিত বর্ণনা টি আপনার কাঙ্খিত গ্রাহকের মনে প্রভাব ফেলবে বলে আপনি মনে করেন? ওই সব বিস্তারিত বর্ণনা গুলো রাখুন। যত টুকু বিষয় প্রকাশিত হলে আপনি অস্সস্তিবোধ করবেন না, ঠিক তত টুকুই প্রকাশ করুন। যেহেতু এটি আপনার কাহিনী, সুতরাং এর পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণের অধিকার আপনার আছে।

কিন্তু যাই লিখে থাকুন না কেন, মিথ্যা কথা লিখবেন না।

আপনি যা লিখেছেন, তাতে যদি আপনি খুশী থাকেন, তবে আরেকটি বিরতি নিন এবং নিজেকে এক কাপ কফি বা আপল পাই দিয়ে পুরুস্কৃত করুন।

আপনি কষ্ট করছেন এবং এটি আপনার প্রাপ্য।

কিন্তু দাঁড়ান, আমরা এখনো শেষ করিনি…..

 

আপনার কাহিনী কিভাবে ব্যবহার করবেন?

 

আপনার যদি ইতিমধ্যে কোনো ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে থাকে, তাহলে সেখানে about পেজে লেখাটি প্রকাশ করুন। যদি আপনি কোন গেস্ট ব্লগ বা অন্য সাইটেতে এ কাজ করে থাকেন, তন্ন আপনি চাইলে পাঁচটি বাক্যের মাধ্যমে লেখকের জীবনী হিসেবে আপনার লিখাটির একটি সংস্করণ প্রকাশ করতে পারেন।

যদি তা না থেকে থাকে, তাহলে লিখাটি আপাতত ফাইল এ  সংরক্ষণ করুন।আপনি সহজেই এটি পরবর্তীতে ব্যবহার করতে পারবেন।

আমি জানি আপনি কি ভাবছেন

আপনার কাহিনী গুলো লিখেন নি? ভাবছেন আপনার জীবন অনেক বেশি একঘেয়ে? অথবা ভাবছেন আপনার কাহিনী আপনার কাঙ্খিত মক্কেলকে আকৃষ্ট করার বদলে উল্টো আপনার প্রতি বিতশ্রাদ্ধ করে ফেলবে?

চিন্তা করবেন না। আমার যেসব মক্কেলরা ইতিমধ্যে অনলাইনে সফল ভাবে ব্যবসা করছেন, তাদের কেও আমি এভাবেই ভাবতে দেখেছি।

আমি আপনাকে আশ্বস্ত করছি, আপনার কাহিনীগুলো শুধু আপনার কাছে এবং যারা আদর্শ মক্কেল নয়, শুধু তাদের কাছেই বিরক্তিকর মনে হবে।

আমার মনে হয়, এটা আপনার জেনে রাখা ভালো, যে আপনি এত বেশিবার আপনার কাহিনী গুলো বলবেন যে এতে আপনার বিরক্তি বোধ হতে পারে। এটি খুব স্বাভাবিক এবং এইজন্য মানসিক চাপ বা দুশ্চিন্তা গ্রস্থ হওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই।

এবং আর একটি বিষয়,  আপনি আপনার কাহিনী গুলোকে সবসময় পরিবর্তন ও পরিমার্জন করতে পারবেন এবং আরো উন্নত করতে পারবেন। এটি এমন নয় যে কখনো পরিবর্তন করা যাবেনা।

তাহলে আপনি কেন এখনো বসে বসে পড়ছেন? উঠে পড়ুন এবং আপনার কাহিনীটি লিখে ফেলুন। এর পর ফিরে এসে নিচের কমেন্টস ঘরে আপনার মন্তব্য লিখুন। যদি আপনি ফিডব্যাক চান, তবে একটি লিঙ্ক সংযুক্ত করুন।

বিশেষ দ্রষ্টব্য: আপনি যদি আগ্রহী হয়ে থাকেন, তবে আমার কাহিনী এখানে পড়তে পারেন। এটি আমি অনেকদিন আগে লিখে ছিলাম এবং শীগ্রহীই এটি পরিমার্জন করবো।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


Enjoy this blog? Please spread the word :)